Please wait...

মাদ্রাসা ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার

কওমী মাদরাসা ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারটি ইতিমধ্যে সমগ্র বাংলাদেশে সারা জাগিয়েছে। উক্ত সফটওয়্যারটি নেয়ার পূর্বে একজন ক্রেতার প্রশ্নোত্তরগুলো উপস্থাপন করা হল।

এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে কি কি উপকার পাওয়া যাবে?

প্রকৃতপক্ষে এই সফটওয়্যারটির কার্যকারীতা সুবিশাল ও বহুমুখী। ব্যবহারকারী ব্যবহারের মাধ্যমেই এর উপকারিতা উপলব্ধি করতে পারবে। এর সুবিধাসমূহ উপস্থাপন করা হল।

(ক) কয়েকটি ক্লিকে ছাত্র ভর্তির সাথে সাথে ভর্তি ভাউচার তৈরী ও প্রিন্ট করা, ভর্তি বাবদ মোট আয়, ক্লাশওয়ারী আয়, ছাত্রের নাম ঠিকানা ছবি ও জন্ম তারিখসহ ভর্তি রেজিস্টার, ক্লাস হাজিরা খাতা, পরিচয়পত্র (আইডি কার্ড), অভিভাবক মোবাইল নাম্বার, নতুন পুরাতন ছাত্র, আবাসিক অনাবাসিক ছাত্র তালিকা ইত্যাদি প্রায় একশরও বেশী রিপোর্ট অটোমেটিক তৈরী হবে। যা হাতে কলমে করা অনেক সময় ও অধিক জনবলের প্রয়োজন।

(ঘ) দৈনন্দিন আয় ব্যয়, ব্যাংক হিসাব, লেজার হিসাব, ক্যাশ হিসাব, ছাত্রদের মাসিক ফি গ্রহণ, পাওনা ও বকেয়া হিসাব, ব্যালেন্স শীট, বাৎসরিক প্রতিবেদন, শিক্ষকদের তথ্য ও সেলারী (বেতন) ইত্যাদি এখানেও প্রায় একশরও বেশী রিপোর্ট রয়েছে।

(ঙ) পরীক্ষার ফি গ্রহণের মাধ্যমে পরীক্ষার আয় ব্যয়, দস্তখতপত্র, নম্বরপত্র, প্রবেশপত্র, সীটনাম্বারসহ আরো অনেক রিপোর্ট।

(চ) খুব সহজে ফলাফলের প্রাপ্ত নাম্বার এন্ট্রির ব্যবস্থা। এন্ট্রির পর রোল, প্রাপ্তনাম্বার, মেধা ও ডিভিশন সিরিয়ালে ফলাফল রিপোর্ট এবং প্রত্যেক ছাত্রের আলাদা ও একত্রে মার্কসীট, সনদ (সার্টিফিকেট)।

(ছ) খুব সহজে বোর্ড পরীক্ষার জন্য বোর্ডে ছাত্রদের তথ্য প্রেরণ রিপোর্ট।

(জ) ফিংগারপ্রিন্ট মেশিনের মাধ্যমে ছাত্র হাজিরার ব্যবস্থা। ছাত্ররা তাদের আইডি কার্ডগুলো মেশিনের সামনে রাখার সাথে সাথে অটোমেটি হাজিরা (এটেন্ড) হবে এবং যদি কোন ছাত্র নির্দৃষ্ট টাইমে উপস্থিত না হয় তাহলে তার অভিবাকের নিকট অটোমেটিক অনুপস্থিত মেসেজ সেন্ড হবে।

 

অনলাইন না অফ লাইন?

দুভাবেই ব্যবহার করা যাবে তবে যে কোন একটিকে আপনি নির্বাচন করতে পারবেন।

 

 

পরবর্তিতে অনলাইন থেকে অফলাইন বা অফলাইন থেকে অনলাইনে পরিবর্তন করা যাবে?

হ্যা, করা যাবে তবে সে ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ প্রযোজ্য হবে।

 

অনলাইন ও অফলাইনের পার্থক্য কি সে ক্ষেত্রে মূল্যের কম-বেশী হবে কি?

অনলাইন সফটওয়্যারটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবহার করতে হবে এবং পৃথিবীর যে কোন স্থান থেকে পরিচালনা করা যাবে পক্ষান্তরে অফলাইন এর বিপরীত। মূল্যের কম-বেশী নেই অনলাইনের জন্য শুধুমাত্র বাৎসরিক সার্ভার ভাড়া তিন হাজার টাকা প্রদান করতে হবে।

 

সফটওয়্যারটি একই সাথে কতজন ব্যবহার করতে পারবে?

একই সাথে অগণিত লোক নিজ নিজ ইউজার পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে ব্যবহার করতে পারবে।

 

কতটি ভাষায় হবে?

তিন ভাষায় যথাক্রমে আরবী বাংলা ও ইংরেজী।

 

সফটওয়্যারটি কত দিন ব্যবহার করা যাবে?

প্রতিষ্ঠানের বিল্ডিং যেমন এসেট (স্থায়ী সম্পত্তি) সফটওয়্যারটিও ঠিক তদ্রুপ তবে এর চেয়েও বেশী বলা যেতে পারে।

 

 

একাউন্টিং-এর লোক তা’লিমাতে বা তা’লিমাতের লোক একাউন্টিং এর তথ্যে প্রবেশ না করতে পারে এধরনের কোন সীমাবদ্ধতা করা যাবে?

হ্যাঁ করা যাবে। সফটওয়্যারের অফসরহ নিজেই ইউজার উরংঃৎরনঁঃরড়হ (বন্টন) করবেন।

যদি কম্পিউটার নষ্ট হয়ে যায় অথবা পুড়ে যায় তাহলে এর কি উপায়?

পেইনড্রাইব, সিডি, অথবা অনলাইনে খুব সহজে ডাটাবেজ ব্যাকআপের ব্যবস্থা রয়েছে।

 

আমরাতো কম্পিউটার বেশী বুঝিনা বা চালাতেও জানি না আমরা কি পারব?

এর ইউজার ইন্টারফেস খুবই সুন্দর ও সহজ তাই যে কোন লোক অনায়াসে ব্যবহার করতে পারবে। তাছাড়া সাথে থাকবে ইউজারগাইড ও ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখে দেখে নিজেই কাজ করতে পারবে।

 

সফটওয়্যারটির মূল্য কত হবে?

সফটওয়্যারটির মূল্য প্রথম ইনস্টলমেন্ট ১০০০০ টাকা। এতে একশত ছাত্র এন্ট্রি করা যাবে। একশ-এর অধিক ছাত্র এন্ট্রির জন্য ছাত্র সংখ্যা হিসেবে মূল্য তালিকা নিম্নরূপ : –

 

ক্র: ছাত্র সংখ্যা মূল্য ছাত্র এন্ট্রির সংখ্যা ও মোট মূল্য
 ১  প্রথম ১০০  ১০,০০০/-  মোট ১০০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ১০০
 এর পরবর্তি ১০০  ৫,০০০/-  মোট ১৫০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ২০০
 এর পরবর্তি ১০০  ৪,০০০/-  মোট ১৯০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ৩০০
 এর পরবর্তি ১০০  ৩,০০০/-  মোট ২২০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ৪০০
 এর পরবর্তি ১০০  ২,০০০/-  মোট ২৪০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ৫০০
 এর পরবর্তি ১০০  ১,০০০/-  মোট ২৫০০০ টাকায় ছাত্র এন্ট্রি করতে পারবে ৫০০
মোট  ৬০০ ছাত্র  ২৫,০০০/-  এরপর প্রতি নতুন ১০০ ছাত্র এন্ট্রির জন্য টাকা লাগবে ১০০০ করে

 

যোগাযোগ : +8801822930055, +8801972930055

গবেষণায় : এক ঝাক তরুণ আলেম, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ও অভিজ্ঞ একাউন্টার।

পরামর্শ ও পৃষ্ঠপোষকতায় : বেফাকের মহাসচিব ও মহাপরিচালক মহোদয়।

যা করে থাকি : সাহারা আইটি দির্ঘ দিন ধরে কওমী মাদরাসার আলেম উলামাদের মাধ্যমে সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসছে এবং বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার আবিষ্কার করে আসছে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে অনলাইন ওয়েবসাইট, নিউজ পোর্টাল, সেলস ইনভেন্টরী (দোকানের), হস্পিটাল ম্যানেজমেন্ট, হোটেল ম্যানেজমেন্ট, মাদরাসা ও স্কুল ম্যানেজমেন্ট, ব্যাংক ও মাল্টিপার্পাস ইত্যাদি সফটওয়্যার

 

যে সকল প্রতিষ্ঠানে প্রদান করা হয়েছে : দারুল উলূম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী, ফরিদাবাদ ঢাকা, বাইতুন নূর যাত্রাবাড়ী, আল-মানহাল উত্তরা। এছাড়াও আরো অনেক মাদরাসায়।

বাংলা