Please wait...

কমিটি গঠন পদ্ধতি

তারিখে প্রকাশিত হয়েছে।
কমিটি গঠন পদ্ধতি

৪. বেফাক কর্তৃক প্রদত্ত দস্তুরুল মাদারিস-এ বর্ণিত বিধি-বিধান-এর ভিত্তিতে কমিটি গঠন করে তা বেফাক দফতরে জমা দিতে হবে।
৫. বেফাক থেকে উপরোক্ত কমিটি মঞ্জুর করিয়ে আনতে হবে।
৬. মাদরাসার জন্য একটি দস্তুর (গঠনতন্ত্র) থাকতে হবে। বেফাক কর্তৃক প্রণীত দস্তুরুল মাদারিস-এর আঙ্গীকে এটি প্রণয়ন করে বেফাক থেকে তা মঞ্জুর করিয়ে নিতে হবে।
৭. বেফাক-এর অন্তর্ভুক্তির জন্য মাদরাসার শূরার/আমেলার সিদ্ধান্ত থাকতে হবে এবং সিদ্ধান্তের রেজুলেশনের কপি বেফাকভুক্তির আবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে।
৮. বেফাক কর্তৃক প্রদত্ত নেছাবনামা, পাঠদান পদ্ধতি, পরীক্ষা গ্রহণ পদ্ধতি, তা‘লীম তারবিয়াত দান পদ্ধতি এবং মাকাদীরে আসবাক অনুসরণ করতে হবে। বেফাক কর্তৃক নির্ধারিত পাঠ্য বই/কিতাব পাঠ্য করতে হবে।
৯. দরখাস্ত দিয়ে ইলহাক সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে। কাগজপত্র বাবত নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে অফিস থেকে দু’ধরনের কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে। যথাঃ-

বেফাকভূক্তির আবেদন পত্র- পূরণ করে বেফাক দফতরে জমা দিতে হবে ডাউনলোড করুন

এতদসঙ্গে আরো জমা দিতে হবেঃ-

০১.    ধার্যকৃত ইলহাকী ফি, এই লিংকে

০২.    চলতি শিক্ষা বছরের বার্ষিক ফি।

০৩.    বেফাক-এর অন্তর্ভূক্ত হবার ব্যাপারে মাদরাসা কমিটির রেজুলেশনের ফটোকপি। সভাপতি,

সেক্রেটারী ও মোহতামেম-এর দস্তখত ও সীলসহ।

০৪.    মাদরাসার গঠনতন্ত্র- ২ কপি।

গঠনতন্ত্র তৈরি করা না হয়ে থাকলে, বেফাকের দস্তুরুল মাদারিস-এর বিধান মুতাবিক গঠনতন্ত্র তৈরি করে জমা দিতে হবে।

০৫.    ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার ওয়ার্ড কমিশনারের সার্টিফিকেট-এর ফটোকপি।

০৬.  মাদরাসার সংক্ষিপ্ত পরিচিতি।

০৭. সরকার অনুমোদিত অডিট কোম্পানী দ্বারা মাদরাসার হিসাব অডিট হয়ে থাকলে এর কপিও বেফাকের অফিসে জমা দিতে হবে। অন্যথা মাদরাসা কমিটির অডিট রিপোর্ট জমা দিতে হবে। তবে প্রতি বছর সরকার কর্তৃক অনুমোদিত চার্টার্ড একাউন্টেন্টস্ কোং দ্বারা মাদরাসার স্থাবর-অস্থাবর যাবতীয় সম্পত্তি অডিট করিয়ে নিতে হবে। মাদরাসার স্বার্থে এটা অপরিহার্য। উপরোক্ত এক নং-এর আওতায় বর্ণিত ৯ প্রকার ফরম-এর সঙ্গে কমিটির রেজুলেশন, হিসাবের অডিট রিপোর্ট, ইউ.পি চেয়ারম্যান/মিউনিসিপ্যাালিটি বা পৌরসভার ওয়ার্ড কমিশনারের সার্টিফিকেটসহ এ মুহুর্তে উপরোক্ত কাগজপত্র এবং গঠনতন্ত্র, মাদরাসার পরিচিতি ও ফিসমূহ জমা দিতে হবে।

০৮. এ সব বিষয়ের এক এক কপি মাদরাসার দফতরে অবশ্যই জমা রাখতে হবে। আর যা মঞ্জুর করিয়ে নিবেন, তা-ও হিফাযতে রাখতে হবে। আর যা মঞ্জুর করিয়ে নিবেন, তা-ও হিফাযতে রাখতে হবে।

০৯. মাদরাসার নামে দানকৃত/ওয়াকফকৃত/ক্রয়কৃত সম্পত্তির দলিলের ফটোকপি।

দুই  :  যা যা পড়া, জানা, সংরক্ষণ করা এবং যা যা কার্যকর করা খুবই প্রয়োজনঃ

(১) বেফাক-এর রেজিষ্ট্রেশনের নিয়মাবলী ও শর্তাবলী।

(২) বার্ষিক ইশতিহার

(৩) নেছাবনামা  :   শিশু শ্রেণী হতে ৮ম শ্রেণী

(৪) নেছাবনামা  :  ৯ম শ্রেণী হতে ১৬শ শ্রেণী

(৫) পরীক্ষার নেছাব  :   ১ পাতা

(৬) দস্তুরুল মাদারিস

(৭) মাদরাসার হিসাব নির্দেশিকা

(৮) ভাউচার লেখার পদ্ধতি ১ পাতা

(৯) বেফাক-এর পরিচিতি

৯.     আর ‘হিফ্য ছাত্রদের তথ্য বই’-এটি ক্রয়ের জন্য হিফয ছাত্রদেরকে উৎসাহিত করতে হবে ও তা গুরুত্বের সাথে পূরণ করতে হবে।

১০. বেফাক-এর অফিসে উপরোক্ত কাগজপত্র জমা হবার পর অনুর্ধ এক মাসের মধ্যে মাদরাসা পরিদর্শন করা হবে। পরিদর্শনের রিপোর্টের ভিত্তিতে মাদরাসা ইলহাক করা হবে। পরিদর্শন ব্যয় মাদরাসাকে বহন করতে হবে।

১১. দস্তুরুল মাদারিস-এর আঙ্গিকে মাদরাসার জন্য একটি দস্তুর এবং চাকুরী-বিধি, শিক্ষকদের আচরণ বিধি ও বেতন স্কেল প্রণয়ন করে-এর অনুমোদনের জন্য বেফাক দফতরে ২ কপি জমা দিতে হবে অনুর্ধ ছয় মাসের মধ্যে।

বাংলা